আজ ৯ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গাজীপুরে শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

মোঃ আরিফ মৃধাঃ

গাজীপুর মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে ১৫ আগস্ট শাহাদাতবরণকারী সকল শহীদদের ও একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার গাজীপুর মহানগরের শহীদ আহসান উল্লাহ মিলনায়তনে এ-অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। গাজীপুর মহানগর যুবলীগের আহবায়ক, হাজারো যুবকের আইকন যুব নেতা কামরুল আহসান সরকার রাসেলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

অনুষ্ঠানে জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন অতি সাধারণ মানুষের নেতা। তিনি সারাটি জীবন সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জন্য রাজনীতি করে গিয়েছেন। তিনি মানুষকে অন্তর দিয়ে ভালোবাসতেন। বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিক তার কাছে ছিল অত্যন্ত দামী। তিনি কাউকে কখনো ছোট করে দেখতেন না। বঙ্গবন্ধুর হৃদয় ছিল শিশুর মত কোমল।স্বার্থপরতা, মিথ্যা, অন্যায় অপরাধ এগুলো তাকে কখনো গ্রাস করতে পারেনি। তাই মানুষকে অতি দ্রুত তিনি বিশ্বাস করতেন। বঙ্গবন্ধুর সেই বিশ্বাসের মর্যাদা কিছু স্বার্থপর বিশ্বাসঘাতক বেঈমানরা সেদিন দিতে পারি নাই। নিজেদের স্বার্থ ও অসৎ উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য সেদিন বঙ্গবন্ধুকে তারা নির্মমভাবে হত্যা করেছে। হত্যা করেছিল ছোট শিশু, বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেল সহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে।

জাহিদ আহসান রাসেল বলেন,বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশকে তারা কলঙ্কের কালিমা লেপে দিয়েছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে এদেশে অন্যায়-অপরাধ ছড়িয়ে দিয়েছিল খুনিরা। বঙ্গবন্ধুর মতো বড় মাপের মানুষ বিশ্বে বিরল। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ধারণ করে তার আদর্শকে সামনে রেখে আমরা রাজনীতি করি। তিনি বলেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল, বাংলাদেশ হবে ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র্যমুক্ত স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ। আমরা যদি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সেই সোনার বাংলাদেশ গড়তে চাই তাহলে অবশ্যই বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে লালন করে আমাদেরকে রাজনীতি করতে হবে। তাই আসুন আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে কে সামনে রেখে সাধারণ মানুষের জন্য রাজনীতি করি। তাহলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়া সম্ভব।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে কামরুল আহসান সরকার রাসেল বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড একটি ঘৃণিত অপরাধ। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের বিচার বাংলার মাটিতে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েক জনের ফাঁসির রায় কার্যকর হয়েছে। বাকিদের বিচারের রায়ও অবিলম্বে কার্যকর হবে এটা আমরা বিশ্বাস করি। তিনি বলেন,বাংলার যুব সমাজ সবসময়ই শেখ হাসিনার পাশে থাকবে। সকল অন্যায় অপরাধের দাঁতভাঙ্গা জবাব দিবে যুবলীগ। রাসেল সরকার বলেন, যুবলীগের প্রতিটি সদস্য ন্যায়ের পথে অবিচল থেকে বাংলাদেশের উন্নয়নে যুবসমাজের অধিকার আদায়ে কাজ করে যাচ্ছে।রাসেল সরকার বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করি।

সুতরাং কোনো অন্যায় কে আমরা প্রশ্রয় দেবো না। রাসেল সরকার বলেন, ৭৫ এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছিল তারা জাতীয় বেঈমান। এরই ধারাবাহিকতায় একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে যারা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল তারা বাংলাদেশের দুশমন। তাদেরকে অতি দ্রুত বিচারের সম্মুখীন করতে হবে। তাদের বিচারের রায় কার্যকর করার জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠান শেষে ১৫ আগস্ট ও ২১ শে আগস্ট নিহতদের স্মরণে দোয়া করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ
%d bloggers like this: