আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পুলিশ সুপার আলী আহমদ খাঁন এর নির্দেশনায় ওসি জহিরুল ইসলাম খাঁন পিপিএম তত্ত্বাবধানেসালনা হাইওয়ে থানা এলাকার চিত্র পাল্টে গেছে

আব্দুল বাতেন ঃ

হাইওয়ে পুলিশের,গাজীপুর রিজিয়নের পুলিশ সুপার আলী আহমদ খাঁন এর নির্দেশনায় সালনা হাইওয়ে থানা এলাকার গাজীপুর টাংঙ্গাইল মহাসড়কের মৌচাক, কালিয়াকৈর ও সাভার, চন্দ্রা মহা সড়কে মিলেছে অনেকটাই সস্থীর নিঃশ্বাস। কমেছে অনেকটাই আগের চেয়ে সড়ক দুর্ঘটনা ও চাঁদাবাজি।

গত ০৮/০৬/২০২০ ইং তারিখে কালিয়াকৈর চন্দ্রা হাইওয়ে পুলিশ বক্সের সামনে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের সাথে মত-বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়, উক্ত সভায় হাইওয়ে পুলিশের দায়িত্বপূর্ন এলাকাকে অযান্ত্রিক যান চলাচল মুক্ত ঘোষণা করা সহ, সেই সাথে পরিবহনে চাঁদাবাজি মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে।তার-ই ধারাবাহিকতায় সালনা হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জহিরুল ইসলাম খাঁন পিপিএম, কঠোর অবস্থানে রয়েছেন।

তিনি সালনা হাইওয়ে থানার দায়িত্ব পেয়েছেন গত১৫ই, মার্চে , দায়িত্ব পাওয়ার অল্প কিছু দিন পরেই বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে অঘোষিত লকডাউন শুরু হয়। এই লক ডাউনের সময় থেকে এযাবৎ পর্যন্ত কঠোরভাবে তার অফিসারদের সাথে নিয়ে দায়িত্ব পালন করে আসছেন ওসি। শুধু তাই নয় তার এই চাকুরী কালিন সময়ে তিনি দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো , নরসিংদী জেলা পুলিশ, সিলেট জেলা পুলিশ, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ,ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ,ও ঢাকা ডিবি পুলিশ।সব স্থানেই ছিলেন তিনি দায়িত্বে অন্যান্য দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী অফিসার।

এমনকি দায়িত্বে অবদান রাখাতে পেয়েছেন রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ মর্যাদার পদক পিপিএম।ওসি জহিরুল ইসলাম খাঁন পিপিএম বলেন,আমি সালনা হাইওয়ে থানায় যোগদানের সাথে সাথেই আমাদের দেশে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। সারা দেশে অঘোষিত লকডাউন ছিলো।পরিবহন চলাচল বন্ধ ছিল।

বর্তমানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আঁকারে গত ১লা জুন থেকে গণপরিবহন চলাচল করছে বিদায়, সালনা হাইওয়ে থানার সকল সদস্যদেরকে নিয়ে মহামান্য হাইকোর্ট/ সুপ্রিমকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক থ্রি-হুইলারসহ সকল অযান্ত্রিক যান হাইওয়েতে চলাচল রহিতঃ করনসহ কঠোর অবস্থানে রয়েছি।সিমিত আকারে গণপরিবহন চলাচল শুরু হ‌ওয়ার পর থেকে এযাবৎ পর্যন্ত প্রায় ৫শ,টির মত অযান্ত্রীক যান আটক করে থানায় রেখেছি।তিনি আরও বলেন,সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষে আমরা সার্বক্ষণিক টহলবৃদ্ধিসহ নজরদারি বৃদ্ধি করেছি।

যাতে করে পরিবহন থেকে নামে/বেনামে কোন ব্যানারে চাঁদাবাজি করতে না পারে। যদি কারও সম্পৃক্ততা পাওয়া যায় তাহলে আমারা, তাদেরকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করব। এছাড়াও যদি আমাদের কোন পুলিশ সদস্যদের তথ্য প্রমাণসহ এহেন কর্মকাণ্ডের সাথে সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়, তাহলে তাদেরকেও বিভাগীয় শাস্তির আওতায় আনা হবে। কোন অপরাধঁকে হাইওয়ে পুলিশ ছাড় দেবেন না।আমরা উপর মহলের যেকোন নির্দেশনা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে যাব।ইতোমধ্যে আপনারা জেনেছেন, থ্রি-হুইলারসহ সকল অযান্ত্রিক যান সালনা হাইওয়ে থানায় আটক করে রেখেছি।

এ বিষয়ে সালনা হাইওয়ে থানার সকল অফিসার ও সদস্যগণ দিনরাত করোনার ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। আমি কৃতজ্ঞ আমার সকল সদস্যদের প্রতি।সবাই একাদর্শে না থাকলে আমার একার পক্ষে তা সম্ভব হতো না।একার্দশ থাকার কারনেই অতি অল্প সময়ের মধ্যে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। আমি দেশ ও দেশের সকল স্তরের মানুষের কাছে দোয়া চাই যাতে করে সর্বদাই সঠিকভাবে আমার দায়িত্ব পালন করে যেতে পারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ
%d bloggers like this: